+8801718-188138
Image
  • 5
  • Feb
  • 2019

ছারপোকার জ্বালা ছারপোকা দূর করবেন কিভাবে?

ছারপোকা কতটা যন্ত্রণাময় তা শুধু মাত্র ভুক্তভোগীরা জানেন। শান্তির ঘুম হারাম করার জন্য একটি ছারপোকা যথেষ্ট। মূলত বিছানা, বালিশ, সোফা এইসকল জিনিসে ছারপোকার উপদ্রব অনেক বেশি হয়ে থাকে। ছারপোকার কামড় থেকে ব্যথা, জ্বালাপোড়া শুরু করে অ্যালার্জির সমস্যাও হতে পারে। তাই বিছানাপত্র থেকে ছারপোকা যত দ্রুত সম্ভব দূর করা উচিত। 

তবে একবার ঘরে ছারপোকা ঢুকে পড়লে তা দূর করা বেশ কঠিন এর অন্যতম পছন্দের আবাসস্থল হচ্ছে - ম্যাট্রেস, সোফা এবং অন্যান্য আসবাবপত্র। পুরোপুরি নিশাচর না হলেও ছারপোকা সাধারণত রাতেই অধিক সক্রিয় থাকে এবং মানুষের অগোচরে রক্ত চুষে নেয়। মশার মতো ছোট্ট কামড় বসিয়ে এরা স্থান ত্যাগ করে। তাই বলে যে দিনের বেলায় কামড়াবে না এমন না।

বাংলাদেশে ছারপোকা চেনেন না বা নাম শুনেন নি এমন মানুষ বোধহয় কমই আছে। বিশেষ করে ছাত্রছাত্রীরা বা মেসে থাকে এমন কেউই বোধহয় নেই যে ছারপোকার জালায় অতিষ্ঠ হয়নি। ছোট এই প্রাণীটি যে কারো রাতের ঘুম হারাম করে দিতে পারে। আর বাড়িতে একবার ছারপোকা দেখা গেলে ছারপোকা দমন এর উপায় খুজতে মাথার ঘাম পায়ে এসে যায়। অনেকে হয়তো বিভিন্ন রাসায়নিক দ্রব্যাদিও ব্যবহার করেন। কিন্তু তবুও অনেক সময় দেখা যায় ছারপোকা থেকে মুক্তি মেলেনি। তবে আপনি জানেন কি প্রাকৃতিকভাবেও আপনি ছারপোকা থেকে মুক্তির পেতে পারেন? হ্যা, এটাও সম্ভব। এক্ষেত্রে আপনাকে নিচের কোন একটি বা কয়েকটি পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে। প্রথমেই বলব যদি কেরোসিনের গন্ধ সইতে পারেন তাহলে আমাদের দেশে অনেক রকমের স্প্রে বোতল পাওয়া যায়,একটা স্প্রে বোতল ২৫০এমএল কেরোসিন ভরে বাসার প্রতিটা দেওয়ালের গোড়ায় হালকা হালকা কেরোসিন স্প্রে করে দিবেন,তবে রুম এর সমস্ত কাপড় বা আসবাব পত্র সরিয়ে রাখতে পারলে ভালো হবে,কেরোসিন হচ্ছে ছারপোকার জম। 

শুধু তাই নয়,যদি তেলাপোকা থাকে তাও মরে যাবে, আরো একটি মনে রাখার বিষয় হচ্ছে কেরোসিন স্প্রে করার সময় মুখে একটা মাস্ক ব্যবহার করবেন, আবার আমি কক্সবাজারে দেখেছি বিছানার নিচে ঝাউ গাছের ডাল রেখে দেয়,বা ঘরের সামনে বেঁধে রাখে,তাতেও নাকি ছারপোকা চলে যায়, ছারপোকা তাড়াতে যা করবেন: আপনার ঘরের বিছানা সহ অন্যান্য জায়গা থেকে ছারপোকা তাড়াতে সারা ঘরে ভালো করে ভ্যাকুয়াম করুন।

ভ্যাকুয়াম করার সময় খেয়াল রাখুন যাতে ঘরের মেঝেও বাদ না পড়ে। এতে করে আপনার ঘরে ছারপোকার আক্রমণ অনেকটাই কমে যাবে। ছারপোকা মোটামুটি ১১৩ ডিগ্রি তাপমাত্রাতে মারা যায়। ঘরে ছারপোকার আধিক্য বেশী হলে বিছানার চাদর, বালিশের কভার, কাঁথা ঘরের ছারপোকা আক্রান্ত জায়গাগুলোর কাপড় বেশী তাপে সিদ্ধ করে ধুয়ে ফেলুন। ছারপোকা এতে মারা যাবে।

আপনার ঘরের যে স্থানে ছারপোকার বাস সেখানে ল্যাভেন্ডার অয়েল স্প্রে করুন। দুই থেকে তিনদিন এভাবে স্প্রে করার ফলে ছারপোকা আপনার ঘর ছেড়ে পালাবে। এক লিটার পানিতে ডিটারজেন্ট যেমন সার্ফ এক্সেল ঘন করে মিশিয়ে স্প্রে করুন। উপায়ে স্প্রে করার ফলে ছারপোকা সহজেই মারা যাবে আপনার ঘরের আসবাবাপত্র লেপ তোশক পরিষ্কার রাখার সাথে সাথে নিয়মিত রোদে দিন। এতে করে ছারপোকার আক্রমণ কমে যাওয়ার সাথে সাথেই ছারপোকা থাকলে সেগুলো মারা যাবে। আপনার ঘরের ছারপোকা তাড়াতে অ্যালকোহল ব্যবহার করতে পারেন। ছারপোকা প্রবণ জায়গায় সামান্য অ্যালকোহল স্প্রে করে দিন দেখেবেন ছারপোকা মরে যাবে। উপরের পদ্ধতিগুলো ছাড়াও ছারপোকার হাত থেরে রেহাই পেতে আপনার বিছানা দেওয়াল থেকে দূরে স্থাপন করুন। শোয়ার আগে পরে বিছানা ভালো করে ঝেড়ে ফেলুন সাথে পরিষ্কার পরিছন্ন থাকুন।

১। ঘরকে বিশেষ করে ঘুমানো জায়গা, বসার রুম (সোফা ইত্যাদি থাকার স্থান) কে পুংখানুপুংখ ভাবে পরিস্কার করুন। যত আবজর্না, ময়লা আছে সব পরিস্কার করুন। পারলে vacuum cleaner ব্যবহার করুন। vacuum cleaner দিয়ে ম্যাট্রেস/ তোষকের নিচ, আলমিরা, অন্যান্য ফাকঁ-ফোকড় থেকে এই পোকা খুব ভালভাবে পরিস্কার করা যায়। তবে মনে রাখতে হবে, ব্যবহার করার পর অবশ্যই vacuum cleanerকে ভালভাবে পরিস্কার করতে হবে। নচেৎ, এটা থেকে পুনুরায় বিস্তার লাভ করতে পারে।

২। ঘরের বিছানা, তোষক, লেপ, বালিশ ইত্যাদি কয়েকদিন পরপর রোদে দিন। বিছানার চাদর অন্তত সপ্তাহে একবার পরিবর্তন করুন।

 ৩। এই পোকাগুলো উড়তে পারে না, কেবল হেটেঁ একস্থান হতে অন্যস্থানে যায়। তাই ঘরের খাটকে এমন স্থানে রাখুন যেখানে উপরে বর্নিত এই পোকার আবাসস্থল হতে দূরে থাকে। যেমন খাটকে দেয়ালের সাথে একবারে না লাগিয়ে একটু ফাকাঁ করে রাখুন।

৪। ঘরের মধ্যে যদি মালামাল স্তূপ করে রাখেন,তবে একে সাফল্যজনক ভাবে দমন করা কঠিন হয়ে পরে।

৫। খাটের নিচে মালামাল, ব্যাগ, ম্যাগাজিন, ইত্যাদি স্তূপকারে না রেখে অন্য কোথাও রাখুন।

৬। যদি আপনি নিয়মিত ভ্রমণ করেন, তবে আপনার ব্যাগ হতে এটা বিস্তার লাভ করতে পারে। তাই প্রতিবার ভ্রমণের শেষে ব্যাগকে অবশ্যই ধুয়ে বা রোদে কয়েকবার শুকাতে হবে।

৭। নিমের তেল ব্যবহার করে এই পোকাকে সাফল্যজনক ভাবে দমন করা যায়। যেকোন সুপার মার্কেটে এটা পাওয়া যেতে পারে। যদি উপরের পদ্দ্বতি সমূহ ব্যবহার করে এর আক্রমনের মাত্রা না কমে, তবে শেষ বিকল্প হিসাবে কীটনাশক ব্যবহার করুন। সাবধানতাঃ কীটনাশক মানেই বিষ। তাই ব্যবহারের পূর্বে অবশ্যই অবশ্যই প্যাকেটের গায়ে লেখা সর্তকতা সমূহ ভালভাবে পড়ুন এবং মানুন। ব্যবহার শেষে কীটনাশকের বোতলকে নির্ধারিত স্থানে ফেলুন বা মাটিতে পুতেঁ ফেলুন।

) Suspend SC (a.i. Deltamethrin 4.75 %): Odorless synthetic pyrethroid এটা একবার স্প্রে করার পরার আবার দুই মাস পড়ে আর একবার করুন। এই নামে না পাওয়া গেলে, ব্রাকেটের মধ্যে লেখা active ingredient অর্থাৎ Deltamethrin ভূক্ত যেকোন ব্রান্ড নামের কীটনাশক ব্যবহার করতে পারেন। সবচেয়ে ভাল হয়, একজন Professional এর সাহায্য নেয়া।

) ডাস্ট টাইপের কীটনাশক ব্যবহার করা। যেমন Drione Dust এটা ব্যবহারে জন্য ডাস্টার ব্যবহার করুন। না থাকলে হাতে গ্লাভস পরে ছিটিয়ে দিন।

আপনি যদি এই সব করতে না পারেন অথবা এগুলো করেও আপনার বাসা থেকে ছারপোকা যাচ্চে না. তাহলে আপনি আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন আমরা যে কোনো বাসা বাড়ি থেকে চিরতরে ছারপোকা নির্মূল করে থাকি।

আমরা যে কোনো বাসা বাড়ি থেকে চিরতরে ছারপোকা নির্মূল করে থাকি গ্যারান্টি সহকারে.

আপনি আমাদের ওয়েবসাইট অথবা ফেইসবুক পেজ গিয়ে আমাদের সার্ভিস সম্পর্কে দেখতে পারেন আমরা ইতিমধ্যে প্রায় ১০০ এর উপরে বাড়িতে আমাদের সেবা প্রদান কোরেসি এবং ওই সব বাড়ি এখন আর কোনো ছারপোকা নেই

এবং আমাদের প্রধান লক্ষ্য আমাদের ক্লায়েন্ট দের কীটপতঙ্গ থেকে রক্ষা করা আমাদের সেবা দেয়ার মাধ্যমে।

 আমাদের ওয়েবসাইট http://www.carepestbd.com .এবং আমাদের ফেইসবুক পেজ https://www.facebook.com/Telapoka-87347446197/

আমাদের প্রধান সেবা সমূহ:

  1.         রেন্ট কন্ট্রোল সেবা
  2.           ছারপোকা নিয়ন্ত্রণ সেবা
  3.           তেলাপোকা নিয়ন্ত্রণ সেবা
  4.        .  টার্মাইট কন্ট্রোল সার্ভিস
  5.      .    বিছানা বাগ নিয়ন্ত্রণ সেবা
  6.           পিঁপড়া নিয়ন্ত্রণ সেবা
  7.       কনটেইনার সেবা

Leave A Comment

Contact Us